ব্রেকিং নিউজ

আড়ালে ওমর ফারুক চৌধুরী

  |  ০৭:২১, অক্টোবর ০৯, ২০১৯

ডেইলি সিলেট মিডিয়াঃ আড়ালে চলে গেছেন যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী। সামনে যুবলীগের জাতীয় কংগ্রেস। এরপরও তিনি যাচ্ছেন না সাংগঠনিক ও ব্যক্তিগত কার্যালয়ে। এড়িয়ে চলছেন গণমাধ্যমসহ পরিচিত মহল। দেখা পাচ্ছেন না সংগঠনের নেতাকর্মীরাও। বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের কেন্দ্রীয় কার্যালয়, ধানমণ্ডির যুব জাগরণ কেন্দ্র এবং ওমর ফারুক চৌধুরীর ধানমণ্ডির বাসভবনে গিয়েও তার সাক্ষাৎ পাওয়া যায়নি। এসব স্থানে কেউ তার অবস্থান সম্পর্কে স্পষ্ট করে কিছুই বলতে পারেননি। অন্যদিকে তার মোবাইল ফোনেও যোগাযোগ করা যাচ্ছে না। রিং হলেও তিনি ফোন রিসিভ করছেন না। এদিকে প্রেসিডিয়ামের বৈঠক ডেকেছে কেন্দ্রীয় যুবলীগ। এ বৈঠকে সংগঠনের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী উপস্থিত থাকবেন কি না, তা কেউই নিশ্চিত করতে পারেননি।

এদিকে শুরুতেই ‘শুদ্ধি অভিযান’ নিয়ে নেতিবাচক বক্তব্য দেয়ায় যুবলীগ চেয়ারম্যান সমালোচনার মুখে পড়েন। অবশ্য বাস্তবতা বুঝতে পেরে দ্রুত নিজেই অবস্থান বদল করেন। অভিযানকে স্বাগত জানিয়ে ওমর ফারুক বলেন, ঢাকার বিভিন্ন জায়গায় অবৈধভাবে ক্যাসিনোর পেছনে যুবলীগের অনেকে জড়িত থাকার অভিযোগ উঠেছে। সংগঠনের সভাপতি হিসেবে এটি তার ব্যর্থতা বলে তিনি মনে করেন।

ক্যাসিনোসহ নানা অভিযোগে সংগঠনের বেশ কয়েকজন গ্রেফতার হন। বাংলাদেশ ব্যাংক তার সম্পদের হিসাব তলব করে। এরই মধ্যে গ্রেফতার হন যুবলীগের আরেক শীর্ষ নেতা ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট। এর আগে ওমর ফারুক চৌধুরীর দেশত্যাগের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। এ বিষয়ে বিমানবন্দর ও স্থলবন্দরগুলোয় সরকারের পক্ষ থেকে নির্দেশনা পাঠানো হয়। নেয়া হয় বাড়তি সতর্কতা।

তবে দেশত্যাগের ওপর নিষেধাজ্ঞার খবরের পর ওমর ফারুক চৌধুরী একটি গণমাধ্যমকে টেলিফোনে বলেন, আমি দেশ ছেড়ে পালাব কেন? আমি দেশেই আছি, দেশেই থাকব। আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নন। আমি যদি কোনো অপরাধ করি তাহলে আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে। কিন্তু এরপর থেকেই আর তার দেখা পাচ্ছেন না কেউই। সাংবাদিকদের সঙ্গেও কথা বলছেন না তিনি। স্বভাবতই প্রশ্ন উঠেছে- ওমর ফারুক চৌধুরী এখন কোথায়?

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ব্যাংক হিসাব তলবের পর নিজেকে গুটিয়ে নিয়ে ধানমণ্ডির বাসভবনে আছেন ওমর ফারুক চৌধুরী। এখন দলীয় কোনো কর্মকাণ্ডেও তাকে দেখা যাচ্ছে না। ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের পর থেকে যাচ্ছেন না ধানমণ্ডির পাঁচ নম্বর সড়কের যুব জাগরণের অফিসেও। যুব জাগরণের এই অফিসটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন ফারুক নিজেই। এদিকে মঙ্গলবার বিকালে ধানমণ্ডির ৫/এ-এর যুব জাগরণ কেন্দ্র এবং ধানমণ্ডি ৮/এ-এর ওমর ফারুক চৌধুরীর বাসবভনে গিয়েও তার সাক্ষাৎ পাওয়া যায়নি।

মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে সরেজমিন ধানমণ্ডির ৫/এ-এর যুব জাগরণ কেন্দ্রের কার্যালয়ের সামনে একটি গাড়ি ও একটি মোটরসাইকেল দেখা যায়। কার্যালয়ের দ্বিতীয় তলার অফিসে কয়েকজন নেতাকর্মী ও কর্মচারী থাকলেও তারা কেউই গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি। অন্যদিকে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে ওমর ফারুক চৌধুরীর ধানমণ্ডির বাসভবনে গিয়েও তার সাক্ষাৎ পাওয়া যায়নি। ওমর ফারুক চৌধুরী যে বাসায় থাকেন, ‘ইস্টার্ন হেরিটেজ’ নামের সেই বাসার দারোয়ান মেহেদি বলেন, গণমাধ্যমকর্মী বা দলীয় নেতাকর্মী কারোরই ভেতরে যাওয়ার অনুমতি নেই। ওমর ফারুক চৌধুরী বাসায় আছেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এটা তো আমি বলতে পারব না।’

এদিকে ওই বাসার আশপাশের বেশ কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আগে সেখানে প্রায়ই নেতাকর্মীদের লাইন লেগে থাকত। অভিযান শুরুর পর প্রথমদিকে অনেক নেতাকর্মী যুবলীগ চেয়ারম্যানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে সেখানে গিয়েছেন। কিন্তু কয়েকদিন হল সেখানে কারও দেখা মিলছে না। এদিকে শুদ্ধি অভিযান শুরুর পর থেকে ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের কেন্দ্রীয় কার্যালয়েও যাচ্ছেন না ওমর ফারুক চৌধুরী। সংগঠনের জাতীয় কংগ্রেসের ঘোষণার পর যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদসহ সংগঠনের প্রেসিডিয়ামের সদস্যরা নিয়মিত অফিসে গেলেও তিনি একদিনও যাননি ।

যুবলীগের প্রেসিডিয়ামের বৈঠক আজঃ এদিকে আজ প্রেসিডিয়ামের বৈঠক ডেকেছে কেন্দ্রীয় যুবলীগ। বেলা ১১টায় ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে প্রেসিডিয়াম সদস্যদের এ বৈঠকের বিষয়ে অবহিত করেছেন। তবে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে গণমাধ্যমকে কিছু জানানো হয়নি। যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী এ বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন কি না, সে বিষয়টি কেউই নিশ্চিত করতে পারেননি। তবে অপর একটি সূত্র জানায়, ওমর ফারুক চৌধুরীর বৈঠকে অংশ নেয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এদিকে যুবলীগ সূত্র জানায়, প্রেসিডিয়ামের আজকের বৈঠকে জাতীয় কংগ্রেসের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হবে। এছাড়া ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি পদ এবং উত্তর-দক্ষিণের কাউন্সিল নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হতে পারে। পরে গণভবনে গিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করার কথা রয়েছে যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের। সেখানে বৈঠকের বিস্তারিত প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করা এবং পরবর্তী কার্যক্রমের বিষয়ে দিকনির্দেশনা চাওয়া হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী বলেন, সাধারণ সম্পাদক মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে আমাদের বৈঠকের বিষয়ে অবহিত করেছেন। বৈঠকে যুবলীগ চেয়ারম্যান উপস্থিত থাকবেন কি না জানতে চাইলে তারা বলেন, সাধারণত চেয়ারম্যান প্রেসিডিয়ামের বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। কিন্তু এখনকার পরিস্থিতি অনেকটা ভিন্ন। তাই কালকের (আজকের) বৈঠকে তিনি উপস্থিত থাকবেন কি না, সে বিষয়ে কোনো তথ্য আমাদের জানা নেই।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ